প্রচ্ছদ খোলা কলাম, স্লাইডার

ছাত্রলীগ মানেই ঐতিহাসিক বিজয়ের ধারাবাহিকতাঃ সোনালি অর্জন

ফারুক ওমর | রবিবার, ০৫ নভেম্বর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 227 বার

ছাত্রলীগ মানেই ঐতিহাসিক বিজয়ের ধারাবাহিকতাঃ সোনালি অর্জন

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, একটি নাম, একটি বিস্ময়। যার রয়েছে বর্ণাঢ্য অতীত, রয়েছে ইতিহাস। দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বৃহত্তম ছাত্র সংগঠন এই ছাত্রলীগ। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে শিক্ষা, শান্তি, প্রগতির ধারক ও বাহক ছাত্রলীগ নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে আজকের দিন পর্যন্ত এগিয়ে এসেছে। অসাম্প্রদায়িক রাজনীতিতে বিশ্বাসী এই ছাত্র সংগঠনটির মধ্য দিয়েই এদেশে অনেক গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সূচনা। আমাদের এখনই সতর্ক হওয়া উচিত। আমাদের দুর্বলতার সুযোগ যেন কোন মৌলবাদী সংগঠন নিতে না পারে। আমাদের অমনোযোগিতার কারণে দেশের আর কোন তরুণ যেন বিপথগামী না হয়, দীক্ষা না নেয় জঙ্গীবাদের, মৌলবাদের। অথচ আমাদের যা আছে তা তাদের নেই। আমাদের আদর্শ রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বরপুত্র স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, যাঁর আদর্শ এখনও তরুণদের অনুপ্রাণিত করে। যার জ্বালাময়ী বক্তব্য তরুণ হৃদয়ের তন্ত্রীতে অনুরণন তোলে দেশপ্রেমের। যাঁর বক্তব্যে হ্যামিলনের সেই বংশীবাদকের মতো এখনও বাংলার হাজার হাজার ছাত্র সমাজ এসে দাঁড়ায় ছাত্রলীগের পতাকাতলে, জয় বাংলা ডাকে। কিছু উচ্ছৃঙ্খল মানুষের জন্য গৌরবের সংগঠনটি নষ্ট হয়ে যাবে, তা তো হতে পারে না।প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সভানেত্রী শেখ হাসিনা উপরোক্ত পদক্ষেপগুলো নিয়ে জঞ্জাল পরিষ্কার করে দিয়ে একটি ডিজিটাল ছাত্রলীগ বিনির্মাণ করে দিয়ে যেতে পারলে ছাত্রলীগের ইতিহাসে আপনার নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। আমরা স্বপ্ন দেখি, আমরা আশা রাখি, সকল সমস্যার সমাধান ঘটিয়ে আপন আলোয় উজ্জ্বল হয়ে উঠবে ছাত্রলীগ।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ চিরজীবি হোক।

Comments

comments

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮