প্রচ্ছদ খোলা কলাম, স্লাইডার

ছাত্রলীগ ও অনুপ্রবেশকারী নিয়ে কিছু কথা

মোঃ মোবারক হোসেন | শনিবার, ৩১ মার্চ ২০১৮ | পড়া হয়েছে 76 বার

ছাত্রলীগ ও অনুপ্রবেশকারী নিয়ে কিছু কথা

প্রতিটি স্বার্বভৌম রাষ্ট্রের একটি ইতিহাস ঐতিহ্য থাকে। ঠিক তেমনি আমার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের ও একটি সোনালী ইতিহাস রয়েছে। যে ইতিহাসের একটি বিরাট অংশ জুড়ে রয়েছে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতেগড়া শিক্ষা শান্তি আর প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাংলাদেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রাম আর মুক্তি বার্তার ইতিহাসে এক গৌরবউজ্জল স্হান দখল করে আছে ছাত্রলীগ। নানান প্রতিকূলতা আর চক্রান্তকে উপেক্ষা করে আজও পর্যন্ত ছাত্রলীগের সেই সুনাম অক্ষুন্ন রয়েছে। কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে কিছু চিত্র স্পষ্টভাবে আমাদের চোখে ফুটে উঠেছে। ছাত্রলীগের সুনাম, ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার জন্য স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিরা আজ বিভিন্নভাবে কতিপয় কৌশল অবলম্বন করে চলেছেন। যার একটি কৌশল হলো বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তথা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, মহানগর, জেলা, উপজেলা, পৌর ও কলেজ শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন কমিটিতে বি এন পি জামাত ও তাদের আদর্শে অনুপ্রাণিত ব্যক্তিদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন করা। যে পিতা বি এন পি কিংবা অন্য কোন স্বাধীনতার বিপক্ষের দলের কোন গুরুত্বপূর্ণ পদে অবস্থান করে আছেন সেই পিতার সন্তান কখনো বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারন করতে পারেনা। বর্তমান সময়ে ছাত্রলীগের বিভিন্ন শাখার কমিটিতে চক্রান্ত করে অনুপ্রবেশকারীদের বিভিন্ন পদে আসীন করা হচ্ছে। যার ফলশ্রুতিতে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন জায়গায় ছাত্রলীগের গ্রুপিং, মারামারি হচ্ছে। গভীর পর্যালোচনা ও তদন্ত করলে দেখা যায় যেখানে ছাত্রলীগের কোন অন্যায় কার্যক্রম ও মারামারি সংঘটিত হয় সেখানেই অনুপ্রবেশকারীদের পদচিহ্ন। এই অনুপ্রবেশকারীরাই ছাত্রলীগের সুনাম নষ্ট করার জন্য দায়ী। বিভিন্ন দ্বিধা দ্বন্দ সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের ইতিহাসে ছাত্রলীগকে কলংকের দ্বারপ্রান্তে পৌছে দেয়ার জন্যই তাদের এই নীল নকশা। বর্তমানে নবীনগরেও এই চিত্র দেখা যাচ্ছে। বি এন পি পরিবারের সন্তানদের ছাত্রলীগে ঠায় করে দেয়া হচ্ছে। ছাত্রলীগের বিভিন্ন গুরুত্বপৃুর্ণ দায়িত্ব থাকা ব্যক্তিরাই তাদেরকে কাছে টেনে নিয়ে ছাত্রলীগের আদর্শ ও ইতিহাসকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন। যে পরিবারে কখনো বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা বিশ্বাস গ্রহনযোগ্য হয়নি সেই সব পরিবারের সন্তানদের এগিয়ে আনা হচ্ছে ছাত্রলীগে। যা ছাত্রলীগের জন্য ভবিষ্যত পথচলায় হুমকি স্বরুপ। এসব অনুপ্রবেশকারীদের জন্য প্রকৃত ছাত্রলীগ কর্মীরা উৎসাহ উদ্দীপনা হারিয়ে ক্রমে ক্রমে হারিয়ে যাচ্ছে। এজন্য ছাত্রলীগের আগামি কমিটিগুলোতে অনুপ্রবেশকারীদের যাচাই বাছাই করে সবগুলো কমিটি প্রদান করা একটি বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ বলে আমি ক্ষুদ্র জ্ঞানে মনে করি। আর এ ব্যাপারে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য সবিনয় অনুরোধ করছি। লিখার অনেক কিছুই ছিলো। অনেক কথা, অনেক ব্যথা জমা করে রেখেছি।সময় পেলে একদিন তুলে ধরব ইনশাআল্লাহ্। পরিশেষে আমার প্রাণের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের চির কল্যান কামনা করে বিদায় নিচ্ছি। জয় হোক জননেত্রী শেখ হাসিনার
জয় হোক ছাত্রলীগের।
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।
মোঃ মোবারক হোসেন
সদস্য, আহ্বায়ক কমিটি ও সভাপতি পদপ্রার্থী নবীনগর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগ।

Comments

comments

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০